ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)’র পণ্য ন্যয্যমূল্যে সাধারণ মানুষের কাছে বিক্রি না করে কৌশলে নিজস্ব গুদামে মজুদ করেছিলেন ডিলার শরিফুল ইসলাম কার্তিক। কিন্তু বিধিবাম। খবর পেয়ে যায় গোপালপুর পৌর ছাত্রলীগের উদ্দ্যমী নেতা-কর্মীরা। তাদের নেতৃত্বে চলে শুদ্ধি অভিজান।

বিশ্বস্ত সূত্র থেকে খবর পেয়ে সকাল সাতটা থেকে গোপালপুর পৌর ছাত্রলীগের আহবায়ক উপল পালের নেতৃত্বে একদল কর্মী স্টেশন এলাকায় অবস্থান নেন। এরপরে পুলিশ এবং ইউএনও’র সহযোগীতায় যৌথ অভিযানে শফিকুল ইসলাম কার্তিকের টিসিবি’র পণ্য চুরির ঘটনা বেরিয়ে আসে। এসময় পণ্যবাহী ট্রাকে ৫০ লিটার সয়াবিন তেল, এক বস্তা চিনি, এবং দুই বস্তা পেঁয়াজের কোনো হিসাব পাওয়া যায়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ডিলার শফিকুল ইসলাম কার্তিকের প্রতিষ্ঠানের নাম আল আমিন ট্রেডার্স। তার বাড়ি গোপালপুরের বৈদ্যনাথপুরে। তার সাথে রেলের তেল চুরির দায়ে জেল খাটা আসামী ও ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি রফিকুল ইসলামের আঁতাত রয়েছে।

টিসিবির পণ্য কিনতে আসা এক ব্যক্তি জানান, কার্তিকের মত দুর্নীতিবাজ ডিলারদের কারণেই সাধারণ জনগন ন্যায্যমূল্যে পণ্য কিনতে পারছেন না। এসময় যত দ্রুত সম্ভব কার্তিক এবং তার অনুসারীদের আইনের আওতায় আনার আহবান জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে কথা হলো পৌর ছাত্রলীগের উদ্যমী কর্মী ফয়সাল তৌহিদ তরঙ্গ, এস এম আকাশ এবং সাব্বির রহমানের সাথে। তারা জানান, ‘সকাল সাতটা থেকেই আমরা কার্তিকের কুকর্ম হাতেনাতে ধরার জন্য বসেছিলাম। অবশেষে স্থানীয় জনগণ এবং ইউএনও স্যারের কাছে তার দুর্নীতি প্রমাণ করতে পেরেছি। আমরা এই ঘটনার উপযুক্ত বিচার চাই’।

পৌর ছাত্রলীগের আহবায়ক উপল পাল বলেন, ‘ শহীদুল ইসলাম বকুলের নেতৃত্বে গোপালপুর পৌর ছাত্রলীগ দুর্নীতির বিরুদ্ধে সর্বদা জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। যেখানেই অন্যায় হবে, পৌর ছাত্রলীগ সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে সেটা প্রতিহত করবে’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here